• জাতীয়

রাজধানী ঢাকায় এবার যত্রতত্র পশুর হাট বসতে দেওয়া হবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • জাতীয়
  • ২৪ জুন, ২০২১ ১৮:২৭:২৮

ছবিঃ সংগৃহীত

নিউজ ডেস্কঃ করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির ঝুঁকি থাকায় এবার রাজধানী ঢাকায় যত্রতত্র পশুর হাট বসতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। 

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ঈদুল আযহা উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। 

মন্ত্রী বলেন, সিটি করপোরেশন এবার হাট নিয়ন্ত্রণ করছে, অনেক হাট বন্ধ করে দিয়েছে। এবার ঢাকায় যত্রতত্র হাট বসতে দেওয়া হবে না।

পশুর হাটে স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, অতিমারি চলছে। যেসব গরু ব্যবসায়ীরা আসবেন, তারা যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে আসেন, সে বিষয়ে আমরা নজর রাখব। 

মন্ত্রী বলেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতির ওপর লক্ষ্য রেখে পরে যদি কোনো ব্যবস্থা নিতে হয়, সেজন্য এবার আগেই বৈঠক করেছি। ঈদের বন্ধের সময় সারা দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও নিরাপত্তা বজায় রাখতে জোরদার ব্যবস্থা রাখা হবে। চুরি, ডাকাতি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম বন্ধে গোয়েন্দা নজরদারিসহ পুলিশ-র‌্যাবের টহল বাড়ানো হবে। 

তিনি বলেন, স্থায়ী ও অস্থায়ী পশুর হাটে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। করোনা বিবেচনায় অনলাইন কেনাকাটায় উৎসাহ দেওয়া হবে। অস্থায়ী পশুর হাটে শনাক্তকরণ মেশিন এবং অজ্ঞান পার্টি ও মলম পার্টি যাতে না আসতে পারে, সেই ব্যবস্থা করা হবে।

‘ঈদের সময় ব্যবসায়ীদের টাকা পরিবহনের জন্য পুলিশ সহযোগিতা করবে। যানজট নিরসনে আনসার মোতায়েন করা হবে। যানজটপ্রবণ স্থানে ওয়াচ টাওয়ার থাকবে। যেসব জায়গায় বেশি যানজট হয়, যেমন টঙ্গি থেকে গাজীপুরের রাস্তা এবং যমুনা ব্রিজের ওখানে যানজট কমাতে সড়ক পরিবহন বিভাগকে অনুরোধ করেছি।’ 

তিনি বলেন, কোরবানির পশু পরিবহনের ট্রাক ও নৌযানে চাঁদাবাজি বন্ধে নজরদারি থাকবে। পশু বোঝাই যান জোরপূর্বক যেকোনো জায়গায় থামানো যাবে না। শিল্প এলকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হবে, সেখানে নাশকতা বন্ধে গোয়েন্দা বাহিনী সজাগ থাকবে। ফেরিঘাটে যাতে যানজট না হয়, সেজন্য প্রস্তুতি নেওয়া হবে, নৌযানে অতিরিক্ত যাত্রী নেওয়া যাবে না।

চামড়া কেনাবেচনার সিন্ডিকেট রোধে ঈদের আগে চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হবে জানিয়ে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, চামড়া পাচার রোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। 

ঈদের সময় নিত্যপণের মূল্য বাড়ানো বন্ধ করতে বা ভেজালরোধে ভ্রাম্যমাণ আদালত থাকবে বলেও জানান মন্ত্রী। 

তিনি বলেন, ঈদের সময় সড়ক, মহাসড়কসহ যেকোনো জায়গায় দুর্ঘটনা বন্ধে ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স, কুইক রেন্সপন্স টিম প্রস্তুত থাকবে। গার্মেন্টসহ সব শিল্প কারখানার বেতন নির্দিষ্ট সময় দেওয়ার জন্য বিজিএমইএ, বিকেএমইএসহ সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানানো হয়েছে। তারাও নিশ্চয়তা দিয়েছেন, সময়মত শ্রমিকদের বেতন দেবেন। ঈদ উদযাপনে ধর্ম মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ যেসব নির্দেশনা দিয়েছে বা দেবে, তা মেনে চলার অনুরোধ জানান মন্ত্রী।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, লকডাউন বাস্তবায়ন সংস্থা নিরাপত্তা বাহিনী নয়, বাস্তবায়ন সংস্থা হলো স্বাস্থ্য অধিদফতর। আমাদের নিরাপত্তা বাহিনীকে তারা অনুরোধ করছেন, সে অনুযায়ী নিরাপত্তা বাহিনী কাজ করছে। তারা যেখানে লকডাউন করার কথা বলেন, নিরাপত্তা বাহিনী সেখানে কাজ করে।

মন্তব্য ( ০)





  • company_logo