১৮, ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, সোমবার | | ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪০

‘ঐকান্তিক প্রচেষ্টা থাকলে সফলতা আসবেই’

আপডেট: জানুয়ারি ২৭, ২০১৯

‘ঐকান্তিক প্রচেষ্টা থাকলে সফলতা আসবেই’

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে এ পর্যন্ত ২০ বার শ্রেষ্ঠ ডিসি মনোনীত হয়েছেন তেজগাঁও বিভাগের বিপ্লব কুমার সরকার। এ ছাড়া রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৪ সালে পিপিএম ও ২০১৬ বিপিএম পদক পেয়েছেন। ২০১৯ সালে আবারো বিপিএম পদক পেতে যাচ্ছেন এ চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা। ৪ঠা ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া পুলিশ সপ্তাহে তাকে এ পদক দেয়া হবে। পেশাগত মর্যাদার কারণে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কর্মকর্তাদের মধ্যে তাকে বলা হয় সেরাদের সেরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) আটটি বিভাগে বিভক্ত। এরমধ্যে নানা কারণেই অধিকতর গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ তেজগাঁও। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অত্যন্ত সফলতার পরিচয় দিয়ে তেজগাঁও বিভাগ পুলিশকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিপ্লব কুমার সরকার।

তিনি মনে করেন, যেকোনো সেক্টরই হোক না কেন ঐকান্তিক প্রচেষ্টা থাকলে সফলতা আসবেই। কেউই একা সব কাজ করতে পারেন না। এজন্য দরকার টিমওয়ার্কিং, অদম্য চ্যালেঞ্জিং মানসিকতা ও ধৈর্য। তবে সর্বোপরি সমন্বয় করে কাজে সফলতা অর্জনই একজন পুলিশ অফিসারের আসল যোগ্যতা। ডিসি বিপ্লব কুমার সরকার ২০১৩ সালের ৭ই এপ্রিল থেকে দক্ষতার সঙ্গে নিজের দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।

ডিএমপিতে এ পর্যন্ত ২০বার শ্রেষ্ঠ ডিসির পুরস্কার ও পিপিএম ও বিপিএম পদক পেয়েও সন্তুষ্ট নন নিজের সফলতা নিয়ে। তিনি চান আরো সফলতা। তেজগাঁও এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে ডিসি হিসেবে সন্তুষ্ট কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ডিসি বিপ্লব বলেন, তেজগাঁও এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে সন্তুষ্টির সুযোগ নেই। ভালো অবস্থানে রয়েছি কিন্তু আত্মতৃপ্তিতে নেই। কারণ সফলতার শেষ নেই, আরো ভালো কিছু করার সুযোগ আমার রয়েছে।

আর আমি সে চেষ্টাটাই অব্যাহত রেখেছি। যতক্ষণ পর্যন্ত অপরাধমুক্ত করতে না পারবো ততক্ষণ চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। নতুন করে আবারো বিপিএম পদক পেতে যাচ্ছেন। আপনার অনুভূতি কি? তিনি বলেন, বিপিএম ও পিপিএম পদক পুলিশ সদস্য হিসেবে এক বড় অর্জন ও প্রাপ্তি। ২০১৪ সালে আমি প্রথম পিপিএম পদক পাই। এরপর ২০১৬ সালে বিপিএম পদক অর্জন করি। এবার আবারো বিপিএম পদক পেতে যাচ্ছি। যতদূর জেনেছি ফাইলটি বর্তমানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আছে। মূলত এক বছরের সফলতা ও ব্যর্থতার সার্বিক মূল্যায়ন করেই এই পদক দেয়া হয়। আবার নির্দিষ্ট কাজের ক্ষেত্রে ব্যাপক সফলতার কারণে দেয়া হয়ে থাকে। যেকোনো স্বীকৃতি কাজের আগ্রহ ও গতি বাড়িয়ে দেয়। পুলিশের সর্বোচ্চ এসব পদক আমাকে আনন্দিত করে।

দেশের সমসাময়িক প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সিএনআই’কে বিপ্লব সরকার বলেন, আমাদের দেশে বর্তমানে মাদক সমস্যা খুবই ভয়াবহ আকারে রুপ নিয়েছে। এই মাদককে আমরা যদি নিয়ন্ত্রণ নির্মূল করতে না পারি তাহলে একটি জাতি, একটি প্রজন্ম ধ্বংস হয়ে যাবে। আজকে লক্ষ লক্ষ মানুষ মাদকে আসক্ত হয়ে গেছে। মাদক নিমূল করতে পুলিশ বাহিনীর অনেক সুযোগ রয়েছে। প্রথমত আমরা মাদক দমনে কাজ করছি, তারপর মাদক নির্মূলেও কাজ করছি। মাদকের কারনে অনেক ভয়াবহ ঘটনা ঘটছে। মাদক নির্মূলে আমাদেরকে আরো তৎপর হতে হবে। পুলিশের একার পক্ষে মাদক দমন করা সম্ভব না এর জন্য প্রয়োজন জনসচেতনতা, সামাজিক সচেতনতা। পরিবার থেকে শুরু করে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে সকলকে কাজ করতে হবে। গনমাধ্যমকেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে বলে তিনি বলেন।